শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঝিনাইদহে ২৭ মণ ওজনের দুদরাজের দাম হাকা হচ্ছে ১০ লাখ টাকা ঝিনাইদহের সংসদ আনার হত্যার চাঞ্চল্যকর তথ্য, ছবি ও ভিডিও প্রকাশ ঝিনাইদহে ট্রাক চাপায় এক যুবকের মৃত্যু ঝিনাইদহে টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত খুলনা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার পেলেন বেনাপোল পোর্ট থানার তিন অফিসার দির্ঘ ৯ বছরেও পূর্ণতা পায়নি ঝিনাইদহ সরকারি বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধি স্কুলটি ঝিকরগাছায় ধর্ষিতা কিশোরীর ইজ্জতের দাম নির্ধারণ হলো ৩০ হাজার টাকা! দেশের দক্ষিনাঞ্চলে রেণু পোনা উৎপাদনে এক সমৃদ্ধ ভান্ডার ঝিনাইদহের বলুহর কেন্দ্রীয় মৎস্য হ্যাচারি ঝিনাইদহে প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষায় অর্ন্তভুক্তি বৃদ্ধির লক্ষ্যে অ্যাডভোকেসি সভা ঝিনাইদহের মহেশপুরে এক ব্যক্তিকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

ঝিনাইদহের পাঁচ উপজেলা সামলাচ্ছেন পাঁচ নারী ইউএনও

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৪ মে, ২০২৩
  • ১৪৭ Time View

বসির আহাম্মেদ,ঝিনাইদহ প্রতিনিধি- ঝিনাইদহ জেলার ৬টি উপজেলার মধ্যে ৫টি উপজেলায় পাঁচ জন নারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। ইতিমধ্যে ওই উপজেলাগুলোতে বাল্য বিবাহ বন্ধ, শিক্ষার মান উন্নয়নে, মাদক বিরোধী কার্যক্রম ,যৌতুকসহ নানা ভাল কাজে প্রশংসা পেয়েছেন তারা। দিনে কিংবা রাতে অন্য পুরুষ ইউএনওদের মতোই ছুটছেন গ্রামে । খোজ খবর নিচ্ছেন সরকারি কাজ কর্মের। প্রশাসনিক কাজের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কাজে এই পাচ নারী ইউএনও অবদান রেখেই চলেছেন। আর এই পাঁচ ইউএনও হলেন ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় সাদিয়া জেরিন, শৈলকুপা উপজেলায় রাজিয়া আক্তার চৌধুির, হরিনাকুন্ডু উপজেলায় সুস্মিতা সাহা, কালীগঞ্জ উপজেলায় ইসরাত জাহান, কোটচাঁদপুর উপজেলায় উছেন মে।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বর্তমান উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া জেরিন প্রথমে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগাদান করেন। সেখানে তিনি সঠিক ও সুষ্ঠু ভাবে দায়িত্ব পালন করার পর ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় ২০ ডিসেম্বর ২০২২ সালে নিযুক্ত হন।  ৩৩তম বিসিএস এর ক্যাডার তিনি। ৩৪ তম বিসিএস এ উত্তির্ণ প্রশাসনে ক্যাডারের কর্মকর্তা রাজিয়া আক্তার চৌধুরী শৈলকুপা উপজেলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব নেন ০২ অক্টোবর ২০২২ সালে। ৩৪ তম বিসিএস এ প্রশাসন ক্যাডারে উত্তীর্ণ হয়ে বিভিন্ন উপজেলায় দায়িত্ব  শেষে ৯ মার্চ ২০২২ সালে হরিনাকুন্ডু উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যুক্ত হন সুস্মিতা সাহা। গত ২০ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখে সালে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আসেন ইসরাত জাহান। তিনি ৩৪তম বিসিএস কর্মকর্তা এবং সর্বশেষ কোটচাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আসনে  উছেন মে। তিনি  ৩৪তম বিসিএস কর্মকর্তা এবং কোটচাদপুরে যোগদান করেছেন ১২ মার্চ ২০২৩ তারিখে।

দক্ষতা ,প্রতিভা আর মানবদরদি জনবান্ধন প্রশাসন বলতে যা বোঝায় তা এই ৫ নারী ইউএনও মধ্যে দেখা গেছে। নিজেদের সরকারি দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি  উপজেলার বাল্য বিবাহ বন্ধ,খেলা ধুলা, শিক্ষার মান বাড়ানো, যৌতুকের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা, মাদক নির্মুল,নারীর ক্ষমতায়ন, জনবান্ধব ইউনিয়ণ পরিষদ গড়ে তোলা,ডিজিটাল ভুমিসহ বিভিন্œ কাজে অংশ নিয়ে  সফলতা দেখিয়েছেন। বিশেষ করে বাল্য বিবাহ বন্ধ করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন এই ৫ ইউএনও। দিন কিংবা রাতে যখনই কোথাও বাল্য বিবাহের খবর পান তখনই ছুটে যান সেখানে। বাল্য বিবাহের অপরাধে জেলা কিংবা জরিমান করে বাল্য বিবাহ বন্ধ করে আসছেন তারা।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া জেরিন জানান, তিনি বলেন বর্তমানে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। চেষ্টা করছি স্বচ্ছতা ও ভাল মতো উপজেলা পরিচালনার জন্য। সরকারের সেবাগুলো যাতে নাগরিকরা নিশ্চিত ভাবে পেতে পারে তার জন্য দিন রাত কাজ করছি। ইউএনও সাদিয়া জেরিন আরো জানান, বর্তমান প্রশাসন জনবান্ধবন। এছাড়াও সরকারের অনেক কাজের পরিধি বেড়েছে। সরকার বিভিন্ন ভাবে মানুষের সেবা/সহযোগিতা  প্রদান করছে। সেই গুলো যাতে স্বচ্ছতা এবং সুন্দর  ভাবে পরিচালিত হয় সে ব্যাপারে তিনি দপ্তরের কর্মকর্তা-জনপ্রতিনিধি এবং জনগনকে সাথে নিয়েই  করছেন।  এছাড়াও তিনি বলেন, একজন  নারী হিসেবে উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব নেওয়াটা গর্বের বিষয় বলে মনে করেন।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত  জাহান বলেন, প্রায় ৬ মাস হলো কালীগঞ্জে আছি। কি ধরনের কাজ করছি তা ইতিমধ্যে কালীগঞ্জ উপজেলা বাসী জেনেছেন। শুধু সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে না একজন ব্যক্তি হিসেবেও সমাজের জন্য কিছু দায়িত্ব আছে। তিনি বলেন পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও সঠিক ভাবে কাজ করতে পারেন। কালীগঞ্জ উপজেলাকে বাল্য বিবাহ মুক্ত,মাদক মুক্তসহ নানা ধরনের কাজ করছি।

কোটচাঁদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উছেন মে বলেন, প্রায় ২মাস হলো কোটচাঁদপুর উপজেলায় দায়িত্বে আছি।  ইতিমধ্যে  এই উপজেলাতে যুক্ত হয়ে সরকারি দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি বল্যা বিবাহ  প্রতিরোধ করেছি। তিনি জানান, ইউএনও পদে নারি পুরুষের ভেদাভেদ দেখি না। তিনি বলেন, নারি কিংবা পুরুষ ইউএনও তাদের কর্মদক্ষতায় উপজেলা বাসীসহ সর্বস্তরের মানুষের  কাছে পৌছানো যায়।

শৈলকুপা উপজেলা নির্বাাহী অফিসার রাজিয়া আক্তার চৌধুরী জানান, শৈলকুপা উপজেলাতে আগার আগে অনেক কথাই শুনেছিলাম। কিন্তু আসার পর দেখলাম এই  উপজেলার মানুষ অনেক আন্তরিক। তবে এই উপজেলায় বাল্য বিবাহ, এবং সামাজিক বিরোধ দেখা যায়।  তিনি জানান, উপজেলায় যুক্ত হবার পর সরকারি কাজের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি বাল্য বিবাহ মুক্ত করেছি। এছাড়াও কয়েক দিনের মধ্যে উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নকে বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষনা করছি।  তিনি বলেন, ইউএনও হিসেবে নারী পুরুষ ভেদাভেদ নেই। এই পদে থেকে জনগনের জন্য অনেক কাজ করা যায় এবং সরকারের সেবাগুলো জনগনের দোড় গোড়ায় পৌছে দেওয়া যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 SN BanglaNews
কারিগরি সহযোগিতায়: