শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৭:৫০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি এম রায়হান, সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি এম রায়হান, সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ শার্শায় অনিয়মের অভিযোগে ৩টি ক্লিনিক সিলগালা করা হয়েছে ঝিনাইদহে ব্যাংকার-কাস্টমার সম্পর্ক ও গ্রাহক সেবা উন্নয়ন শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ঝিকরগাছায় ৪০ পিস ইয়াবাসহ ১ যুবক আটক গদখালী থেকে টিকটক থ্রিডি মেশিন জব্দ : প্রশংসায় ভাসছে ঝিকরগাছা পুলিশ বেনাপোল পোর্ট থানায় ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহে রমযানে নিত্যপণ্য মুল্য নিয়ন্ত্রণে করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ফুলের রাজ্যে অশ্লীলতা, সমালোচনার ঝড় কোটচাঁদপুরে ট্রেনের ধাক্কায় স্কুলছাত্র নিহত

শৈলকুপার সোহরাব আলী ৬১ বছর পর স্কুলের বেতন পরিশোধ করলেন!

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৮ জুন, ২০২৩
  • ১৩৩ Time View
শৈলকুপার সোহরাব আলী ৬১ বছর পর স্কুলের বেতন পরিশোধ করলেন!
শৈলকুপার সোহরাব আলী ৬১ বছর পর স্কুলের বেতন পরিশোধ করলেন!

বসির আহাম্মেদ,ঝিনাইদহ প্রতিনিধি-
ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার মহম্মদপুর গ্রামের বাসিন্দা নাম তার সোহরাব আলী। তিনি ৬১ বছর পর স্কুলের বেতন পরিশোধ করলেন । বর্তমানে তার বয়স ৭৫ বছর। হঠাৎ মনে হলো বিদ্যালয়ে তার বেতন বাকি আছে। ঋণি থাকতে চাননা তিনি। তাই নিজ উদ্যোগে বিদ্যালয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে স্কুলের বেতন পরিশোধ করেছেন। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তার বেতন পরিশোধের রশিদও দিয়েছেন, যা তিনি যতœ করে রেখে দিয়েছেন।

সোহরাব আলী জানান,আমার বাবা দরিদ্র ছিলেন। অন্যের জমিতে কৃষি কাজ করে তাদের সংসার চলতো। আমি শিশু অবস্থায় পাশের গ্রাম বড়দা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করি। ওই স্কুল থেকে পঞ্চম শ্রেণী পাশ করে ১৯৬২ সালে বাড়ি থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে ফুলহরি বাজারে অবস্থিত ফুলহরি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। ভর্তির পর ক্লাস করি মাত্র ৬ মাস।
সোহরাব আলী ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার মহম্মদপুর গ্রামের মৃত আব্দুল করিম বিশ্বাস এর ছেলে। স্ত্রী, দুই মেয়ে আর এক ছেলে রয়েছে তার।

গত মঙ্গলবার ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে বেতন পরিশোধ করেন তিনি। বর্তমান বাজারমুল্য বেশি থাকায় এক সঙ্গে ৩ শত টাকা জমা দিয়েছেন।
সোহরাব জানান, বাবা দরিদ্র হওয়ার ফলে ঠিকমতো পড়ার খরচ দিতে পারতাম না। বিদ্যালয়ে সেই সময়ে মাসিক বেতন দিতে হতো ৪ টাকা । সেসময় চার মাস বেতন বাকি পড়ে যায়। এই অবস্থায় আমি লজ্জায় পড়ে যায়। তখন পড়ালেখা ছেড়ে দিয়ে বাবার সাথে কৃষি কাজে নেমে পড়ি। প্রথম বাবার সঙ্গে মাঠে কৃষি কাজ করেছি।কাজ করতে করতে বাংলাদেশ পুলিশের চাকুরীতে যোগদান করি। পুলিশের টেনিং শেষে বাড়ি এসে হাটে হাটে খোলা জায়গায় তেল-মসলার দোকান বসিয়ে ব্যবসা করে জীবন কাটিয়েছি ।

তিনি আরো জানান, ব্যবসা করা অবস্থায় ১৯৭১ সালে দেশে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে চলে যায় ভারতে । প্রথম দফায় রানাঘাট যায়, তারপর করিমপুর। সর্বশেষ বেতাই ক্যাম্পে প্রশিক্ষন নিয়।বেশ কিছুদিন প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেই প্রশিক্ষক হয়ে যায়।
সোহরাব আলী জানান, দেশ স্বাধীন হলে কিছুদিন পর বাড়ি ফিরে এসে আবারো  নিজের ব্যবসা শুরু করি। এভাবে ব্যবসা করে জীবন কাটিয়েছেন।

আর তার তদারকির অভাবে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় আজও তার নামটি আসেনি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সোহরাব আলী।
ফুলহরি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লক্ষণ প্রসাদ সাহা জানান, তাদের এই বিদ্যালয় ১৯২৯ সালে প্রতিষ্ঠিত। সোহরাব আলী ভর্তি হন ১৯৬২ সালে বলে জেনেছেন। যখন সোহরাব আলী বেতন দিতে আসেন তখন অফিসের কাজে তিনি বাইরে ছিলেন। তবে অন্য শিক্ষকরা তার এই ৬১ বছর পর বেতন পরিশোধ করতে আসায় খুব খুশি হয়েছেন। জমা রশিদ দিয়ে তার টাকাটা গ্রহন করা হয়েছে। তার এই সততায় বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক-কর্মচারীরা মুগ্ধ হয়েছেন। বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী ছাদিকুর রহমান জানান, তিনি নিজ হাতে তার বকেয়া বেতনের টাকাটা গ্রহন করেছেন।এবং তার বেতন পরিশোধের রশিদও দিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2023 SN BanglaNews
কারিগরি সহযোগিতায়: